শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ১০:১৬ অপরাহ্ন

ব্যবসায়িক মডেলের অংশ হয়ে উঠেছে খেলাপি ঋণ : রেহমান সোবহান

  • প্রকাশের সময় : ২৪/০২/২০২৪ ১০:৪২:০১
এই শীতে ভাঙন আতঙ্কে দিন কাটছে তাদের
Share
20

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের চেয়ারম্যান ড. রেহমান সোবহান বলেছেন, খেলাপি ঋণ এখন ব্যবসায়িক মডেলের অংশ হয়ে উঠেছে।


ফলে ভালো ব্যবসায়ীর প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা কষ্টকর হচ্ছে। তিনি বলেন, কেউ কেউ সুদ না দিয়ে টাকা ধার নিচ্ছেন আবার কেউ সুদে টাকা ধার নিচ্ছেন, যা খেলার মাঠের অমসৃণতার সৃষ্টি করছে। 


শনিবার রাজধানীর ব্র্যাক ইন সেন্টারে সানেমের বার্ষিক অর্থনীতিবিদ সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে প্যানেল আলোচনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এ অধিবেশনে ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্নেন্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (বিআইজিডি)-এর সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. মির্জা এম হাসান মূল প্রবদ্ধ উপস্থাপন করেন। বিষয়- ‘বাংলাদেশে প্রভাবশালী দলীয় রাষ্ট্রের উত্থান এবং বিকাশ : গণতন্ত্র ও উন্নয়নের কী পরিণতি?’ এ অধিবেশেনে সভাপতিত্ব করেন সিপিডির সম্মানীয় ফেলো অধ্যাপক রওনক জাহান। বক্তব্য দেন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক এমএম আকাশ, গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের জ্যেষ্ঠ গবেষক ড. আশিকুর রাহমান। 


অধ্যাপক রেহমান সোবহান বলেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দেশে অপ্রাতিষ্ঠানিকীকরণের আবির্ভাব ঘটেছে যা আইনের শাসনের যথেষ্ট হ্রাস ঘটায়। ব্যবসায়ীদের ভাগ্য এখন পুরোপুরি রাজনৈতিক পরিচয়ের ওপর নির্ভরশীল। তিনি বলেন, জিয়াউর রহমানের পুঁজিপতি শ্রেণি গড়ে তোলার জন্য রাষ্ট্রীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে চালিত করার নীতির ফলে গত ৪০ বছর ধরে চলছে পুরো খেলাপি সংকট। দেশে ১৯৯১ এবং ১৯৯৬ সালের দুটি জাতীয় নির্বাচনকে গণতন্ত্রের জন্য যুগান্তকারী সাফল্য বলে মনে করেন এ বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ।  


তিনি বলেন, কোনো রকম সেনা সমর্থন ছাড়াই অবাধ এবং অংশগ্রহণমূলক ওই দুই নির্বাচনের মাধ্যমে প্রথম দফায় খালেদা জিয়া এবং পরেরবার শেখ হাসিনা সরকার গঠন করেন। এটি দুই দলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায়ও বড় অবদান রাখে। যা দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশও বাংলাদেশের এই নির্বাচনব্যবস্থা অনুসরণ করে। অবশ্য, বাংলাদেশেই গণতন্ত্রের সেই চর্চা পরবর্তীতে আর অনুসরণ হয়নি। ’৯৬ সালের নির্বাচন ও গণতন্ত্র চর্চা পরবর্তীতে আর অনুসরণ করেনি আওয়ামী লীগ; বরং ক্ষমতা কত দীর্ঘ করা যায় সে চেষ্টাই করছে তারা। এতে রাষ্ট্র চলে যায় একদলীয় নিয়ন্ত্রণে। 


সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের রাজনীতিতে ভূ-রাজনীতির প্রভাব প্রসঙ্গে ড. রেহমান সোবহান বলেন, এ ধরনের প্রভাব সব সময়ই ছিল। রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় ক্ষমতায় রাখা এবং ক্ষমতার বাইরে রাখার বিষয়ে তাদের ভূমিকা থাকে। তবে কিছু ডলারের ব্যবসা দিলে তাদের খুশি রাখা যায়। এরকম ক্ষেত্রে তারা ধুয়েমুছে পরিষ্কার হয়ে যায়। এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে শক্তিশালী বিরোধী দলই শেষ পর্যন্ত ভরসা।


রাজনীতিতে ব্যবসায়ীদের অধিপত্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, খেলাপী ঋণ এখন বাংলাদেশের ব্যবসায়িক মডেলের অংশ হয়ে গেছে। সব ব্যবসা এখন সিন্ডিকেটের কব্জায়। তবে সব ব্যবসায়ী এর সঙ্গে জড়িত নয়, কিংবা ব্যাংক ঋণ পরিশোধে খেলাপি নয়। রাজনৈতিকভাবে সুবিধাবাদী ব্যবসায়ীরা এর সঙ্গে জড়িত। তারা ব্যাংক থেকে ঋণ নেয় পরিশোধ করে না। রিশিডিউলিং বা পুনঃতফসিলীকরণের ব্যবস্থা নেয়। টেন্ডারেও তারাই অংশ নেয়। রাজনীতিকে তারা ভাগ্য বদলের জায়গা হিসাবে বেছে নিয়েছে। 


তিনি আরও বলেন, রাষ্ট্রের রাজনৈতিক এ চরিত্রের পেছনে অপ্রাতিষ্ঠানিকীকরণের প্রভাব। নির্বাচন কমিশন থেকে শুরু করে সব প্রতিষ্ঠানেই রাজনৈতিক পরিচয় আগে দেখা হয়। এটা এক ভয়ংকর পরিস্থিতি। যা উন্নত জাতি হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পথে বড় বাধা।  


শুক্রবার রাজধানীর তিন দিনের এ সম্মেলন উদ্বোধন করেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ। সম্মেলনে এবারের প্রতিপাদ্য ‘নিউ ফ্রন্টিয়ার্স ইন ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড ইমার্জিং ডাইনামিকস’। জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি ইউএনডিপি ও ঢাকায় অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশন আয়োজনে সহযোগিতা দিচ্ছে। ১৬টি অধিবেশনে ১১ দেশের অর্থনীতিবিদ, গবেষক, উন্নয়নকর্মী ও শিক্ষার্থীরা গবেষণাপত্র উপস্থাপন করছেন। 


সিলেট প্রতিদিন / স.ল


Local Ad Space
কমেন্ট বক্স
© All rights reserved © সিলেট প্রতিদিন ২৪
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরি