আরিফের বক্তব্যে তৃণমূল আ’লীগে ক্ষোভ
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৫৬ অপরাহ্ন

প্রতিদিন প্রতিবেদক

প্রকাশ ২০২১-০৯-০৯ ১৩:১৬:৩৪
আরিফের বক্তব্যে তৃণমূল আ’লীগে ক্ষোভ

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের আক্রমন করে সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর দেয়া বক্তব্যে তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষজ বিরাজ করছে দলটির তৃণমূল পর্যায়ে। তারা নানাভাবে সেই ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। কেউ কেউ উগ্রে দিচ্ছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। তবে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীলরা এখনো এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে কোন প্রতিবাদ করেন নি। তৃণমূলের ক্ষোভের এটিও একটি কারণ।

সম্প্রতি মৌলভীবাজারে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর দেয়া বক্তব্যের জবাবে ত্যাক্ত-বিরক্ত হয়ে অনেকেই নানা কটু মন্তব্য করেছেন। কারও কারও মন্তব্যতো শালীনতার সীমাও ছাড়িয়ে গেছে। অবশ্য এসব মন্তব্য করা হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

গত সোমবার ( ৬ সেপ্টেম্বর ) সাবেক অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সাবেক সদস্য সাইফুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মৌলভীবাজার জেলা বিএনপি আয়োজিত এক আলোচনা সভায় মেয়র আরিফের বক্তব্যের প্রতিবাদে রীতিমতো উত্তাল নেটিজেনরা। কেউ কেউ তাকে ‘ভন্ড’ বলেও মন্তব্য করছেন।

সেই আলোচনা সভায় আরিফ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেছেন, এদের  চামড়া এত শক্ত হয়েছে  যে, গন্ডারের চামড়ার চেয়েও বেশি। এদের গায়েও কিছু লাগেনা।

সিলেট বিভাগের বিভিন্ন স্থানের বিভিন্ন স্থাপনা থেকে সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান, বিএনপির কারান্তরিণ চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের স্মৃতি মুছে ফেলা প্রসঙ্গে বক্তব্য রাখতে গিয়ে আরিফ এই মন্তব্য করেছিলেন। 

এর প্রতিক্রিয়ায় এখন সিলেটের আওয়ামী ঘরানার সচেতন বা সাধারণ নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কঠোর সমালোচনামূলক মন্তব্য করছেন।

লুৎফুর রহমান নামক একজনের মন্তব্য এরকম, আপনি যে কত বড় ভন্ড তা আপনার দল ও সিলেটবাসী জানে, সরকারের সবার সাথে সুসর্ম্পক আপনার সাবেক অর্থমন্ত্রী আপনার আরেক পিতৃতুল্য আর পররাষ্ট্র মন্ত্রীকে বাসায় গিয়ে সবার আগে আপনি ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাইছিলেন আর সপরিবারে আপনার মা, বউ, ছেলে, মেয়েসহ সবাইকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে সালাম করলেন বাসায় গিয়ে।

নোমান আহমদ নামক আরেকজনের মন্তব্য, বিড়ালের মতো আপনাদের নেতা তো লন্ডনে বসে আছেন। বাঘের বাচ্চা হলে উনাকে বলেন দেশে এসে রাজনীতি করতে।। আর কবর প্রজেক্টতো সিলেটে আপনি শুরু করেছেন মানিক পীর সাহেবের টিল্লা থেকে। ভালোইতো ফায়দা লুটছেন, আপনার ডিগবাজি সিলেটিরা বুঝে গেছে।

জাবেদ মুস্তাকিরের মন্তব্য, ও লিডার, আপনি নিজেইতো সব নাম মুছতে সাহায্য করছেন।

কেউ কেউ  মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীসহ তারেক রহমানকে উদ্দেশ্য করে রীতিমতো গালাগালও ঝাড়ছেন।

এদিকে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ অঙ্গ ও অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরাও নানাভাবে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর এ বক্তব্যের প্রতিবাদ করছেন। তারা বলছেন, আওয়ামী লীগের কিছু নেতা আর মন্ত্রী বা এমপির কারণেই মেয়র আরিফের এত দম্ভ। সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনের নেকনজরে থেকে রাজনীতি করছেন আরিফ। আর সেই আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে নিয়ে কটু কথা বলতে কোন দ্বিধাই নেই তার।

এ ব্যাপারে দলীয়ভাবে প্রতিবাদ কর্মসূচিও চাইছেন তাদের অনেকে।

উল্লেখ্য, মৌলভীবাজারের সেই সভায় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন এম নাসের রহমান, অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুসহ সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের বিএনপি নেতৃবৃন্দ।


সিলেট প্রতিদিন/ইকে

ফেসবুক পেইজ