সমৃদ্ধির নতুন সোপানে যাত্রা
সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০১:১৯ অপরাহ্ন



প্রতিদিন ডেস্ক

প্রকাশ ২০২২-০১-০১ ১০:২৫:০৮
সমৃদ্ধির নতুন সোপানে যাত্রা

২০২১ সালের শেষ সূর্যাস্ত। স্বাগতম নতুন বছর ২০২২। ছবিটি শুক্রবার রাজশাহীর পদ্মার তীর থেকে তুলেছেন আজম খান পূর্বাকাশে উঠেছে ভোরের সূর্য। একটু একটু করে চারদিকে ছড়িয়ে গেছে আলোর ঝরনাধারা। কুয়াশার চাদরে মুড়িয়ে থাকা প্রকৃতিও জেগে উঠেছে। আজকের এ সূর্য, এ ভোর নিয়ে এসেছে নতুন বার্তা।

২০২২ সালের প্রথম সূর্যোদয় এটি। সৌন্দর্যে ভরবে নতুন বছর, আসবে সমৃদ্ধি-এ প্রত্যাশায় পৃথিবীর মানুষ ‘স্বাগতম ২০২২’ উচ্চারণে আরেকটি খ্রিষ্টীয় বছরকে জানিয়েছে অভিবাদন। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এক নববর্ষে দেওয়া ভাষণে বলেছিলেন, ‘মানুষের নববর্ষ আরামের নববর্ষ নয়; সে এমন শান্তির নববর্ষ নয়; পাখির গান তার গান নয়, অরুণের আলো তার আলো নয়।

তার নববর্ষ সংগ্রাম করে আপন অধিকার লাভ করে; আবরণের আবরণকে ছিন্ন বিদীর্ণ করে তবে তার অভ্যুদয় ঘটে।’ সকালে খ্রিষ্টীয় নতুন বছরের সূর্যোদয় হলেও শুক্রবার রাত ১২টায় ঘড়ির কাঁটা শূন্যের ঘর অতিক্রমের সঙ্গে সঙ্গেই গণনা শুরু হয়েছে নতুন বছরের।

নতুন বছর মানেই নতুন উদ্দীপনা আর প্রেরণা নিয়ে এগিয়ে চলা। পেছনে ফেলে আসা ২০২১ সালের ভুল, হতাশা, দুঃখ, গ্লানিকে দূরে ঠেলে দিয়ে নতুন উদ্যমে সাহস নিয়ে পথচলা। ইতিহাস বলে, মানুষের এগিয়ে যাওয়ার এ স্পৃহাই তাকে নিয়ে এসেছে এতদূর। তাই সব অপশক্তি আর বাধা জয় করে নতুন স্বপ্ন বুকে নিয়ে বাংলাদেশের মানুষ এগিৃয়ে যাবে।

বাঙালির অগ্রযাত্রার যে ধারা শুরু হয়েছে তাতে ২০২২ সালে যুক্ত হবে নতুন নতুন মাত্রা। রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক, শিক্ষাসহ সব ক্ষেত্রে আরও এগিয়ে যাবে-এমন প্রত্যাশা দেশের সব মানুষের। গত বছর যে আশা-প্রত্যাশা নিয়ে পথচলা শুরু হয়েছিল তার অনেকখানি হয়তো পূরণ হয়নি। কিন্তু তাতে কিছু যায় আসে না, নতুন উদ্যম নিয়ে এগিয়ে গেলে সাফল্য আসবেই।

এটাই আজকের দিনের প্রত্যয়। নতুন খ্রিষ্টীয় বছরের আগমন উপলক্ষ্যে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের। পৃথিবীতে এখনও মৃত্যুর দামামা বাজিয়ে চলেছে করোনাভাইরাস।

তাই বিশ্ববাসী এখনো শঙ্কিত। করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’র প্রভাবে বিশ্বের নানা জায়গায় করোনার মৃত্যু বাড়ছে। তাই গত দুটি বছরের ধারাবাহিকতায় এ বছরও বিশ্বের মানুষের সবচেয়ে বড় প্রত্যাশা থাকবে করোনামুক্ত পৃথিবী। একইভাবে বাংলাদেশের মানুষও চায় করোনামুক্ত সুস্থ-স্বাভাবিক এক জীবন। করোনায় আর একটি মৃত্যুও কাম্য নয়। একটি গণতান্ত্রিক দেশ হিসাবে বাংলাদেশের রাজনীতি সবসময় নির্বাচনমুখী। ২০২৩ সালে পরবর্তী সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এ বছরে সেদিক থেকে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনকেন্দ্রিক কর্মকাণ্ডে ব্যস্ত থাকবে।

দেশে বর্তমানে রাজনৈতিক অস্থিরতা নেই। সাধারণ মানুষ এ বছরেও প্রত্যাশা করবে, নির্বাচনমুখী নানা কর্মকাণ্ডের মধ্যেও এই স্থিতিশীলতা অব্যাহত থাকবে।সাম্প্রদায়িকতা, জঙ্গিবাদ, রাজনৈতিক হানাহানি, সংঘাত, লড়াই, সহিংসতা আর কখনো না আসুক। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হোক।

নারীর প্রতি আরও মানবিক হোক সমাজ। সমুন্নত থাকুক মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক চেতনা। সাধারণ মানুষ নিজেদের অর্থনৈতিক অগ্রগতির পাশাপাশি নতুন বছরে দেশের অর্থনীতিকে আরও শক্তিশালী করে তুলতে চায়। কিন্তু মূল্যস্ফীতি ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি গত বছরও সাধারণ মানুষকে অসহনীয় অবস্থায় ফেলেছে। শীতের এই মৌসুমেও সবজির বাজার বর্তমানে চড়া। দিন আনে দিন খায় মানুষ চায় যেন খেয়ে-পরে বাঁচতে পারেন। নতুন বছরে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম হাতের নাগালে না থাকলেও সহনীয় পর্যায়ে থাকবে-এটাই তাদের প্রত্যাশা।

যেসব কালোবাজারি বা চক্র কারসাজি করে সাধারণ মানুষের জীবনকে বিষিয়ে তোলে তাদের শাস্তি নিশ্চিত করারও দাবি সাধারণ মানুষের। শিল্পায়নের জন্য আরও বিনিয়োগবান্ধব অবকাঠামো জরুরি। শিল্প ও উৎপাদন খাতের বিকাশ মানেই নতুন নতুন কর্মসংস্থানের সৃষ্টি।

বাংলাদেশ ইতোমধ্যে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের পথে এগিয়ে গেছে। তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর এ বিপ্লবে জয়ী হতে চাই দক্ষ মানবসম্পদ। মেধাবী নতুন প্রজন্মকে এ বিপ্লবে শামিল করতে দরকার তথ্যপ্রযুক্তির আরও আধুনিকায়ন ও অবকাঠামো নির্মাণ। বিশ্বের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এক্ষেত্রে আরও এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ-এটা নতুন প্রজন্মের প্রত্যাশা। ‘রোহিঙ্গা’ সমস্যার সমাধান শিগগিরই না হলেও এর স্থায়ী সমাধান কী হবে তা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন রয়েছে।

বাংলাদেশের মানুষ রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান চায়। অন্যদিকে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনগত ঝুঁকিতে থাকা দেশ। তার মধ্যেই নদীদূষণ, দখল, নাব্য হারানো, দেদার পাহাড় কাটা, নির্বিচারে গাছ কাটার মতো ঘটনা ঘটতেই থাকে।

এসব বন্ধেও কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়ার তাগিদ রয়েছে। সব প্রতিবন্ধকতাকে সামনে রেখেই আজ সবার একটাই প্রার্থনা-শুভ হোক ২০২২।

সিলেট প্রতিদিন/ এলএস

বিজ্ঞাপন স্থান


পুরাতন সংবাদ খুঁজেন

ফেসবুক পেইজ