সিলেটে স্টুডেন্ট ভিসার নামে ভয়াবহ প্রতারণা
সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৩৪ অপরাহ্ন



অতিথি প্রতিবেদক

প্রকাশ ২০২১-১২-১২ ০২:৫৬:৩৬
সিলেটে স্টুডেন্ট ভিসার নামে ভয়াবহ প্রতারণা

কাউসার চৌধুরী: স্টুডেন্ট  ভিসায় স্বপ্নের দেশ লন্ডনে যাবেন আফরোজা রহমান।এজন্যে সকল প্রস্তুতি নেন। একসময় আফরোজার স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে আসে ‘স্টেলার কনসালটেন্ট’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান।প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মুনতাসির মাহবুব আফরোজার ফাইলপত্র ঢাকাস্থ ব্রিটিশ হাইকমিশনে ভিসার জন্যে প্রসেসিং করেন। তৈরি করেন জব সার্টিফিকেটও। ইউনিভার্সিটি অব দ্যা ওয়েস্ট অফ ইংল্যান্ড (সংক্ষেপে ইউডাব্লিউই), ব্রিস্টলে পড়াশোনা করতে যুক্তরাজ্যের ভিসা পেতে পাসপোর্টসহ ফাইলপত্র জমা দেন। ভিসা দূরে থাক, আফরোজাকে ডক্যুমেন্ট জালিয়াতির জন্যে ১০ বছরের নিষেধাজ্ঞা দেয় ব্রিটিশ হাইকমিশন। কেবল আফরোজা রহমান-ই নয়; এভাবে ১৯ জন মেধাবী শিক্ষার্থী জব সার্টিফিকেট জালিয়াতির ঘটনায় ব্রিটিশ হাইকমিশনে ১০ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন। মুনতাসির মাহবুবের দেয়া জাল ডক্যুমেন্টের কারণে এখন তাদের সামনে কেবলই অন্ধকার।প্রতিবেদকের অনুসন্ধানে স্টুডেন্ট ভিসার নামে এমন ভয়াবহ প্রতারণার চিত্র উঠে এসেছে। প্রতারিত শিক্ষার্থীরা মাহবুব ও তার স্ত্রীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করলেও তারা কৌশলে বের হয়ে গেছে।

যেভাবে প্রতারিত হন ১৯ শিক্ষার্থী

অনুসন্ধানে জানা গেছে, স্টুডেন্ট ভিসার জন্যে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের শুরুতে ১৯ শিক্ষার্থীর পাসপোর্টসহ ফাইলপত্র ভিএফএস- এ জমা দেয়া হয়। সিলেট নগরীর জিন্দাবাজারের ওয়েস্ট ওয়ার্ল্ড শপিং সিটির (লিফটের -৪)৫ম তলায় অবস্থিত ‘স্ট্রেলার কনসালটেন্ট’র ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মুনতাসির মাহবুব সবকটি ফাইল প্রসেসিং করে জমা দেন। ফাইলে জব সার্টিফিকেট হিসেবে আর.এম. গ্রুপের জব সার্টিফিকেটও দেয়া হয়। পাসপোর্ট জমা দেয়ার মাসখানেক পরে ব্রিটিশ হাইকমিশন থেকে শিক্ষার্থীদেরকে ই-মেইল পাঠানো হয়। ই-মেইল করে ব্রিটিশ হাইকমিশন জানায়, ভুয়া ডক্যুমেন্ট দেয়ায় ১০ বছরের জন্য তাদের ব্যান্ড (নিষেধাজ্ঞা) করা হয়েছে। ফাইলে দেয়া জব সার্টিফিকেটটি একেবারেই ভুয়া। একসাথে ১৯ শিক্ষার্থীকে ব্যান্ড বা নিষেধাজ্ঞার ঘটনায় শিক্ষার্থীরা মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন। মুনতাসির মাহবুব শিক্ষার্থীদেরকে ভিসা পাইয়ে দিতে মার্চের প্রথম সপ্তাহে রিভিউ করেন। জুলাইয়ের শুরুতে রিভিউ এর ফলাফল জানায়, ব্রিটিশ হাইকমিশন। এবার হাইকমিশন জানায়, শিক্ষার্থীদের জব

সার্টিফিকেটের সত্যতা নিশ্চিত হতে ব্রিটিশ হাইকমিশন থেকে সরাসরি আর.এম গ্রুপে খোঁজ নেয়া হয়। সরেজমিন গিয়ে জব সার্টিফিকেটগুলোর কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি। রিভিউয়েও ১০ বছরের নিষেধাজ্ঞা বহাল রেখেছে ব্রিটিশ হাইকমিশন।

সূত্র জানায়, স্টুডেন্ট ভিসার জন্যে জব সার্টিফিকেটের কোনো প্রয়োজন নেই। তবে, স্টাডি গ্যাপ (শিক্ষায় বিরতি) হলে অনেকক্ষেত্রে জব সার্টিফিকেটের প্রয়োজন হয়।

সহজভাবে ভিসা পেতে জব সার্টিফিকেট নিজে থেকে তৈরি করে দেন মুনতাসির মাহবুব। শিক্ষার্থীদের প্রবল আপত্তির মুখে মুনতাসির মাহবুব জব সার্টিফিকেটগুলো তৈরি করে দেন বলে তিনি নিজেও লিখিত দিয়ে স্বীকার করেন। অথচ, শিক্ষার্থীরা আর. এম গ্রুপের এই জব সার্টিফিকেট না দেয়ার জন্যে একাধিকবার বাধা দিয়েছিলেন।

মুনতাসির মাহবুবের অঙ্গীকার এবং……..

শিক্ষার্থীরা এভাবে প্রতারিত হওয়ার পর ক্ষুদ্ধ হলে মুনতাসির মাহবুব তাদের ক্ষোভ নিবৃত করার চেষ্টা চালান। এক পর্যায়ে গত ৩১ মে সোমবার মুনতাসির মাহবুব ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীদের সাথে ৪ পৃষ্ঠার একটি অঙ্গীকারনামা করেন। ৩০০ টাকা মূল্যের ৪টি স্ট্যাম্পে করা অঙ্গীকারনামায় মুনতাসির বিস্তারিত বর্ণনা দেন। অঙ্গীকারনামার এক জায়গায় তিনি বলেন, ‘আপনারা ২য় পক্ষগণ নিজ নিজ দায়িত্বে ওয়ার্ক এক্সপেরিয়েন্সের (কাজের অভিজ্ঞতা) কপি প্রদান ইচ্ছা প্রকাশ করেন। কিন্তু, আমি ১ম পক্ষ তাহাতে বাধা দেই এবং আপনারা ২য় পক্ষগণকে আর.এম. গ্রুপের ওয়ার্ক এক্সপেরিয়েন্সের কপি আমি ১ম পক্ষ নিজে তৈরি করে দিবো এবং তাহাতে কোন সমস্যা হবে না বলে নিশ্চয়তা দেই।’ তাছাড়া, ‘আমি ১ম পক্ষ আরো অঙ্গীকার করি যে, উক্ত ওয়ার্ক এক্সপেরিয়েন্সের কাগজাত জমা প্রদান করিলে যদি কোনো সমস্যা হয়; তবে যাবতীয় দায়ভার আমি ১ম পক্ষের উপর পড়িবে এবং যাবতীয় ক্ষতিপূরণ প্রদান করিতে বাধ্য থাকিবো মর্মে অঙ্গীকার করি।’

৫৭ হাজার পাউন্ড ফেরত দেবে না –

নিয়ম অনুযায়ী, ভিসা না হলেও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ফিসের জন্যে জমাকৃত পাউন্ড ফেরত পাঠায়। কিন্তু, ইউনিভার্সিটি অব দ্যা ওয়েস্ট অফ ইংল্যান্ড (সংক্ষেপে ইউডাব্লিউই), ব্রিস্টল-এ এই ১৯ শিক্ষার্থীর ৫৭ হাজার পাউন্ড আর ফেরত দেবে না। জব সার্টিফিকেট জাল প্রমাণিত হওয়ার কারণে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর ৩ হাজার পাউন্ড ফেরত দেবে না বিশ্ববিদ্যালয়টি। ৩ হাজার পাউন্ড করে ১৯ জনের মোট অর্থের পরিমাণ দাঁড়ায় ৫৭ হাজার পাউন্ড। বাকি পাউন্ডের মধ্যে কেউ কেউ পেয়েছেন, আবার কারো কারো প্রসেসিংয়ের মধ্যে রয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

সামনে কেবলই অন্ধকার

স্টুডেন্ট ভিসায় লন্ডন যেতে ১৯ শিক্ষার্থী মুনতাসির মাহবুবের মাধ্যমে ১ লাখ ৯ হাজার ৭৫০ পাউন্ড জমা দেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় এর পরিমাণ দাঁড়ায় ১ কোটি ২৬ লাখ ২১ হাজার ২৫০ টাকা। এর মধ্যে এক ছাত্রী ১০ হাজার পাউন্ড, আরেকজন ৮ হাজার পাউন্ড, অন্যজন ৭ হাজার পাউন্ড, ৫ হাজার পাউন্ড, ৬ হাজার পাউন্ড করে বিপুল পরিমাণের এই অর্থ দেন। স্টুডেন্ট ভিসায় চলে যাবেন লন্ডন এমন আশায় বুক বেঁধেছিলেন ১৯ শিক্ষার্থী। দেশে সরকারি – বেসরকারি কোনো চাকুরির চেষ্টা বা দেশেই উচ্চতর পড়ারও কোনো চেষ্টা না করে সবাই ছুটছিলেন কেবল স্টুডেন্ট ভিসার প্রত্যাশায়। কিন্তু, ভিসা পাওয়া তো দূরের কথা উল্টো ১০ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হওয়ায় এখন তাদের সামনে কেবলই অন্ধকার। প্রতারণার শিকার শিক্ষার্থীরা এখন কি করবেন তা বুঝে উঠতেও পারছেন না। ১০ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হওয়ায় নিজেদের ভবিষ্যৎ নিয়েও শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন তারা। তাদের সামনে এখন কেবলই অন্ধকার। কি করবেন তাও ভেবে পাচ্ছেন না তারা। ১০ বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞা থাকায় লন্ডনের বাইরে ইউরোপ, কানাডা বা আমেরিকার ভিসা পাওয়া নিয়েও অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। এ বিষয়ে তাদেরকে এখনো খোলাসা করে কিছুই জানাননি মুনতাসির মাহবুব।

থানায় সোপর্দ করেও কাজ হয়নি

প্রতারিত শিক্ষার্থীরা কোনো উপায় না দেখে জাল সার্টিফিকেট’র হোতা মুনতাসির মাহবুবকে পাকড়াও করতে পুলিশের শরনাপন্ন হন। গত ৪ ডিসেম্বর শনিবার কৌশলে মাহবুবের স্ত্রী ও স্ট্রেলার কনসালটেন্ট’র চেয়ারম্যান জান্নাতুল ফেরদৌস রাফাকে কোতোয়ালি থানা পুলিশের নিকট সোপর্দ করেন। স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস রাফাকে আটকের পর মাহবুবকেও আটক করা সম্ভব হয়।

মুনতাসির মাহবুব ও তার স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস রাফার বিরুদ্ধে ফৌজদারি আইনে কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়েরেরও প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন প্রতারিত শিক্ষার্থীরা। এরই মধ্যে মাহবুব কোতোয়ালি থানা থেকে মুক্ত হতে নানা কৌশলের আশ্রয় নেন। শিক্ষার্থীদের সাথে আবারও আরেকটি অঙ্গীকারনামা করে থানা থেকে মুক্ত হয়ে যান মুনতাসির মাহবুব ও তার স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস রাফা। এসময় বিষয়টি গোপন রাখার জন্যে শিক্ষার্থীদেরকে শাসিয়েও দেয়া হয়।

বিচার চান তারা

১০ বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞাও পেলেন, টাকাও গেল তবুও আতঙ্ক আর ভয় যেন কাটছে না প্রতারিত শিক্ষার্থীদের। ভবিষ্যৎ নিয়েও পড়েছেন অজানা শঙ্কায়। এর জন্য দায়ী মুনতাসির মাহবুবের বিচার চান ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থী এ প্রতিবেদকের নিকট জালিয়াতির বর্ণনা দিয়ে বলেন, আমাদের ভবিষ্যৎ হুমকির মুখে পড়েছে। আমরা এই প্রতারণার ন্যায় বিচার চাই। আমরা এর ক্ষতিপূরণ চাই। ১০ বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞা দেয়ায় এখন আমাদের সামনে অন্ধকার ছাড়া কিছুই দেখছি না বলেন একাধিক শিক্ষার্থী।

মাহবুবের মোবাইল বন্ধ

এ সকল বিষয়ে জানতে চেয়ে মুনতাসির মাহবুবের গ্রামীণ ফোন ও রবি নম্বরের দুটি সেল ফোনে কয়েক বার কল দিলেও মোবাইল দুটি বন্ধ পাওয়া যায়। (০১৮৪৭৩১১১৯৬/০১৩২১৫২০০৩৫)

কোতোয়ালি ওসি’র বক্তব্য

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে কোতোয়ালি থানার ওসি আলী মাহমুদ গতকাল শনিবার বিকেলে  বলেন, স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে কয়েকজন শিক্ষার্থী একজন লোককে তার স্ত্রীসহ আমাদের নিকট সোপর্দ করেছিল। কিন্তু পরবর্তীতে অভিযুক্ত ব্যক্তি শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে দুই মাসের সময় নিয়ে একটি অঙ্গীকারনামা করে। দুই মাসের মধ্যে সে বিষয়টির সমাধান করবে। দু’পক্ষের মধ্যে সমঝোতা হওয়ায় তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

সিলেট প্রতিদিন/এমআর

বিজ্ঞাপন স্থান


পুরাতন সংবাদ খুঁজেন

ফেসবুক পেইজ